সর্বশেষ সংবাদ:
Responsive image

অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য সম্পর্ক সম্প্রসারণে এফবিসিসিআই’র সঙ্গে জর্জিয়া চেম্বারের সমঝোতা

প্রতিবেদক, বিনিয়োগবার্তা, ঢাকা: দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সঙ্গে ‘সমঝোতা স্বাক্ষর’ চুক্তি স্বাক্ষর করেছে জর্জিয়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি। চুক্তির ফলে যৌথ উদ্যোগে ব্যবসা প্রতিষ্ঠা, তথ্য বিনিমিয় এবং অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য সম্পর্ক সম্প্রসারণে কাজ করবে দেশ দুটি।

মঙ্গলবার রাজধানীর মতিঝিলের ফেডারেশন ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় এ ‘সমঝোতা স্বাক্ষর’ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। জর্জিয়ার মন্ত্রী মি. ডেভিড জালাগানিয়া এবং এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন সমঝোতা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি অনুযায়ী, এখন থেকে এফবিসিসিআই এবং জর্জিয়া চেম্বার তথ্য বিনিমিয় এবং কারিগরি, অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য সম্পর্ক সম্প্রসারণে কাজ করবে। এছাড়াও তারা বিশেষজ্ঞ বিনিময় এবং বাণিজ্য সম্পর্কিত পরিসংখ্যান বিনিময় ও প্রশিক্ষণ আয়োজনের উদ্যোগ নিবে।

স্বাক্ষরিত স্মারকের আলোকে দুপক্ষ অর্থনৈতিক চুক্তি এবং যৌথ উদ্যোগে ব্যবসা প্রতিষ্ঠার পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

সভায় এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, বাংলাদেশ গত কয়েক বছর ধরেই ধারাবাহিকভাবে ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করে আসছে এবং গত বছর ৭ দশমিক ২৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে।

বর্তমান সরকারের উদার ও আকর্ষণীয় বিনিয়োগ নীতির প্রসঙ্গ তুলে ধরে জর্জিয়া প্রতিনিধি দলকে দেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে (এসইজেড) চীন ও ভারতের মত বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

এফবিসিসিআই সভাপতি উল্লেখ করেন যে, সরকার প্রদত্ত ‘ট্যাক্স হলিডে’ এবং বিভিন্ন দেশে রফতানির ক্ষেত্রে ‘কোটামুক্ত সুবিধা’ গ্রহণ করে জজিয় ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারেন।

জর্জিয়ার মন্ত্রী মি. ডেভিড জালাগানিয়া বলেন, এ চুক্তির মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের ক্ষেত্রে নতুন দুয়ার উন্মোচিত হবে। এ সময় জর্জিয়ার মন্ত্রী ঢাকা এবং তিবলিশের মধ্যে সরাসরি বিমান চলাচল প্রতিষ্ঠার ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন। ভবিষৎ প্রজন্মের কল্যাণে বাংলাদেশ ও জর্জিয়া একসঙ্গে কাজ করবে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশ জর্জিয়ায় ১২ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলারের পণ্য রফতানি করে কিন্তু সে সময় জর্জিয়া থেকে উল্লেখযোগ্য কোনো পণ্য আমদানি করেনি। জর্জিয়ায় বাংলাদেশের রফতানিযোগ্য পণ্যগুলো হচ্ছে পাট ও পাটজাত পণ্য, হোম-টেক্সটাইল, পেপার ও পেপার বোর্ড এবং নীটওয়্যার। আর জর্জিয়া থেকে মুলত তুলা, কার্পেটসসহ অন্যান্য ফ্লোর কভারিং, পারমাণবিক চুল্লি, বয়লার, মেশিনারি ও মেশিনারি যন্ত্রপাতি আমদানি করা হয়।

এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় বাংলাদেশে জর্জিয়ার রাষ্ট্রদূত মি. আর্চিল জুলিয়াসভিলি, জর্জিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এশীয় দেশগুলোর বিভাগীয় প্রধান মিস নানা গ্যাপরিনডাসভিলি এবং বাংলাদেশে জর্জিয়ার অনারারি কনসাল রিয়াদ মাহমুদ আলোচনায় অংশ নেন। এসময় এফবিসিসিআই প্রথম সহ-সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, সহ-সভাপতি মো. মুনতাকিম আশরাফ সহ পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।

(এসএএম/ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭)

Short URL: http://biniyougbarta.com/?p=25137

সর্বশেষ খবর