opening photo -1

১০ম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এসএমই ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শতভাগ দেশী পণ্যের সবচেয়ে বড়ো আয়োজন ১০ম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা শুরু হয়েছে। চলবে ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ পর্যন্ত।

বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর ২০২২) সকাল ১০.৩০টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শিল্প মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং এসএমই ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ১০ম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা এবং এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন। 
সভাপতিত্ব করেন এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমান এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফাউন্ডেশনের পরিচালক পর্ষদ সদস্য এনায়েত হোসেন চৌধুরী।

মেলা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি বলেছেন, এসএমই উদ্যোক্তাদের আরো বেশি অর্থায়নের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিতে সরকারের পাশাপাশি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সবার ভূমিকা রাখা প্রয়োজন। 

উল্লেখ্য, রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত শতভাগ দেশী পণ্যের এই মেলায় উদ্যোক্তাদের জন্য ৩২৫টি প্রতিষ্ঠানের ৩৫১টি স্টলের ব্যবস্থা আছে। এছাড়া, মেলায় আগত দর্শনার্থীদের মাঝে এসএমই ফাউন্ডেশনের পরিচিতি ও কর্মসূচি তুলে ধরার লক্ষ্যে এসএমই ফাউন্ডেশনের একটি সেক্রেটারিয়েট, মিডিয়া সেন্টার, রক্তদান কেন্দ্র, ক্রেতা-বিক্রেতা মিটিং বুথ, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের আওতাভুক্ত প্রতিষ্ঠান, যেমন: বিটাক, বিএসটিআই, বিসিআইসি, বিসিক, বিএসইসি, জেডিপিসি, বিসিএসআইআর, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ এবং প্লাটিনাম স্পন্সর ব্র্যাক ব্যাংক, গোল্ডেন স্পন্সর ব্যাংক এশিয়া, ইস্টার্ন ব্যাংক, আইপিডিসি ফাইন্যান্স ও লংকা বাংলা, সিলভার স্পন্সর, আইডিএলসি ফাইন্যান্স ও ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক এবং জেনারেল স্পন্সর কৃষি ব্যাংক, বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক, জনতা ব্যাংক ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের স্টল আছে। 

‘জাতীয় শিল্পনীতি ২০২২’ অনুযায়ী উচ্চ অগ্রাধিকার/অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত খাত কৃষি/খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ ও কৃষি যন্ত্রপাতি, আইসিটি, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, হালকা প্রকৌশল, পাট ও পাটজাত, প্লাস্টিক, হস্ত ও কারু শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত এসএমই প্রতিষ্ঠানসমূহকে মেলায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার প্রদান করা হয়েছে।

২৪ নভেম্বর-০৩ ডিসেম্বর ২০২২, প্রতিদিন সকাল ১০.০০টা থেকে রাত ৮.০০টা পর্যন্ত মেলা প্রাঙ্গন দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

দেশীয় উৎপাদনকারী অথবা সেবামূলক মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারাই মেলায় পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয়ের সুযোগ পাচ্ছেন। বিদেশী/আমদানিকৃত পণ্য মেলায় প্রদর্শন কিংবা বিক্রয় করা যাবে না।

এবার অংশগ্রহণকারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে ৬০% নারী এবং ৪০% পুরুষ। মেলায় অংশ নিচ্ছে ফ্যাশন ডিজাইন খাতের সবচেয়ে বেশি ১৩০টি প্রতিষ্ঠান। এছাড়া খাদ্য/কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ পণ্যের ৪৫টি, হস্ত ও কারু শিল্পের ৩৮টি, চামড়াজাত পণ্য খাতের ৩৬টি, পাটজাত পণ্যের ৩৫টি, আইসিটি পণ্য-সেবার ০৮টি, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্যের ০৬টি, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স খাতের ০৩টি, প্লাস্টিক পণ্যের ০৫টি প্রতিষ্ঠান এবার অংশ নিচ্ছে মেলায়।

১০ দিনের মেলার পাশাপাশি ২৭, ২৮ ও ২৯ নভেম্বর এসএমই উদ্যোক্তাদের জন্য সহজ অর্থায়ন, নারী-উদ্যোক্তা, প্রযুক্তি, আইসিটি ও ক্লাস্টার উন্নয়নের ওপর আয়োজন করা হবে ৫টি সেমিনার।
১. ২৭ নভেম্বর ২০২২ বিকাল ০৩.০০টায় ‘CMSMEs’ Access to Finance in Bangladesh: Scope for Alternative Financing Options’ সেমিনারে প্রধান অতিথি পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি।
২. ২৯ নভেম্বর ২০২২ সকাল ১০.০০টায় ‘ বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দা মোকাবেলায় ক্লাস্টারভিত্তিক ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের ভূমিকা; ক্রস র্বডার ই-কর্মাসে এসএমই উদ্যোক্তাদের সম্ভাবনা’ সেমিনারে প্রধান অতিথি শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি।
৩. ২৯ নভেম্বর ২০২২ বিকাল ০৩.৩০টায় ‘ক্রস বর্ডার ই-কমার্সে এসএমই উদ্যোক্তাদের সম্ভাবনা’ সেমিনারে প্রধান অতিথি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি।
৪. ৩০ নভেম্বর ২০২২ সকাল ১০.০০টায় ‘Regional and Global Network for Women Entrepreneurs: A way forward to face probable crisis’ সেমিনারে প্রধান অতিথি শিল্পসচিব জাকিয়া সুলতানা।
৫. ৩০ নভেম্বর ২০২২ বিকাল ৩.০০টায় ‘এসএমই-তে প্রযুক্তি আধুনিকায়ণ: একাডেমিয়ার ভূমিকা’ সেমিনারে প্রধান অতিথি কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. কামাল হোসেন।

দেশব্যাপী এসএমই প্রতিষ্ঠানসমূহ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদন করছেন। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প-উদ্যোক্তাগণ অনেক উন্নত মানের পণ্য উৎপাদন করলেও বিপণন প্রক্রিয়ার যথার্থ জ্ঞানের অভাবে নানা সমস্যার সম্মুখীন হন। উদ্যোক্তাদের সক্ষমতা অর্জনের জন্য বাজার সংযোগ ও সম্প্রসারণ জরুরি। বাংলাদেশি এসএমই উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তিতে সহায়তা প্রদানে বহুমুখী বাজার সুবিধা সম্প্রসারণের গুরুত্ব বিদ্যমান। এসএমইদের পণ্য বিপণনের সুযোগ বৃদ্ধির জন্য ফাউন্ডেশন পণ্যের বাজারজাতকরণে সহায়তা প্রদান করে। যার অংশ হিসেবে এসএমই ফাউন্ডেশন সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের পণ্যের প্রচার ও প্রসারে ২০১২ সাল থেকে জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা আয়োজন করছে।

মেলা আয়োজনের উদ্দেশ্য:
১. ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তা কর্তৃক উৎপাদিত পণ্যের প্রচার, প্রসার, বিক্রয় এবং স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাজার সম্প্রসারণ;
২. এসএমই উদ্যোক্তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়ন, যোগাযোগ এবং সেতুবন্ধন তৈরিতে সহায়তা;
৩. ভোক্তা এবং এসএমই উদ্যোক্তাদের পারস্পরিক সংযোগ স্থাপন; এবং
৪. সেমিনার/মতবিনিময় সভা আয়োজনের মাধ্যমে পণ্য উৎপাদন ও সেবা সৃষ্টির ক্ষেত্রে ভোক্তাসহ বিভিন্ন মহলের সৃজনশীল মতামত ও পরামর্শ গ্রহণ প্রভৃতি।

এছাড়া এসএমই উদ্যোক্তাদের অবদানের স্বীকৃতি প্রদানের লক্ষ্যে এ বছর পাঁচটি ক্যাটাগরিতে ০৬জন উদ্যোক্তাকে ‘জাতীয় এসএমই উদ্যোক্তা পুরস্কার ২০২২’ প্রদান করা হয়েছে। এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. মফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় মাইক্রো উদ্যোক্তা পুরুষ ক্যাটাগরিতে সেইফ ট্রেডিং কর্পোরেশনের মো. মোস্তফা কামাল, মাইক্রো উদ্যোক্তা নারী তুলিকা’র ইশরাত জাহান চৌধুরী, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা পুরুষ গণি ক্রিয়েশনের মো. মাহফুজুল গনি ও এমাস ফুটওয়্যারের মো. ওবায়দুল হক রাসেল, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা নারী তনিন স্পোর্টস অ্যান্ড ডেইরি’র মোছা. তাসলিমা খাতুন এবং মাঝারি উদ্যোক্তা পুরুষ ক্যাটাগরিতে রাজা মেটালের মো. নজরুল ইসলামের হাতে বর্ষসেরা উদ্যোক্তার ক্রেস্ট, সনদ ও পুরস্কারের চেক তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

এসএমই ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজিত গত ৯টি জাতীয় এসএমই পণ্য মেলায় প্রায় দুই হাজার ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা প্রায় ৩২.৮৮ কোটি টাকার পণ্য বিক্রয় এবং প্রায় ৫৩.৫০ কোটি টাকার অর্ডার গ্রহণ করে। এছাড়া সারা দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য বিভাগ ও জেলায় ১২৬টি আঞ্চলিক-বিভাগীয় এসএমই পণ্য মেলার আয়োজন করে এসএমই ফাউন্ডেশন।

বিনিয়োগবার্তা/ডিএফই//


Comment As:

Comment (0)