Responsive image
সর্বশেষ সংবাদ:

শিল্পখাতের গবেষণা পরিচালনায় একযোগে কাজ করবে ডিসিসিআই ও নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিনিয়োগবার্তা: শিল্পখাতের গবেষণা কার্য়ক্রম পরিচালনায় একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার করেছে দেশের ব্যবসায়ীদের বৃহৎ সংগঠন ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) ও নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ।

রোববার (২২ নভেম্বর ২০২০) রাজধানীর বনানীতে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) এবং নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এর মধ্যে এ বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

ঢাকা চেম্বারের সভাপতি শামস মাহমুদ এবং নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়-এর উপাচার্য প্রফেসর ড. আনোয়ার হোসেন নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী, দেশের অর্থনীতির বৃহত্তর স্বার্থে শিল্প ও শিক্ষাখাতের যৌথ প্রয়াসে প্রতিষ্ঠান দুটি একসাথে কাজ করবে। এছাড়াও ডিসিসিআই এবং নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয় যৌথভাবে গবেষণা, সেমিনার, কর্মশালা, মেলাসহ বিভিন্ন বাণিজ্য আলোচনা সভার আয়োজন করবে। এ সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী, নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ডিসিসিআই ইনটার্নশীপের সুবিধা প্রদান করবে।

অনুষ্ঠানে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি শামস মাহমুদ বলেন, আজকের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানটি একটি অনন্য দৃষ্টান্ত, যা দেশের অর্থনীতির বৃহত্তর স্বার্থে গবেষণা পরিচালনার পাশাপাশি শিল্পের চাহিদা অনুযায়ী নতুন নতুন পণ্য ও প্রযুক্তি উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তিনি বলেন, দক্ষ মানব সম্পদের প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনা করে ডিসিসিআই ‘ডিসিসিআই বিজনেস ইন্সটিটিউট (ডিবিআই)’ প্রতিষ্ঠা করেছে এবং শিল্প খাতের চাহিদা মোতাবেক প্রয়োজনীয় দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিল্পখাতের প্রতিনিধিদের একযোগে কাজ করতে হবে।

ডিসিসিআই সভাপতি বলেন, বাংলাদেশের সমুদ্র অর্থনীতি, অটোমোবাইল এবং লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং অত্যন্ত সম্ভাবনাময় খাত, তবে খাতগুলোর বিকাশে প্রয়োজনীয় মানব সম্পদ তৈরিতে বিশ্ববিদ্যালসমূহের পাঠ্যক্রম যুগোপযোগীকরণ করা প্রয়োজন।

নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়-এর উপাচার্য প্রফেসর ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, করোনা মহামারী সময়কালে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখার জন্য দেশের ব্যবসায়ী সমাজ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে, যা অত্যন্ত প্রশংসনীয় ও আশাব্যঞ্জক। দক্ষ মানব সম্পদ উন্নয়নের লক্ষ্যে শিল্পখাতের প্রয়োজনীয় চাহিদাসমূহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের নিকট পেশ করার জন্য ডিসিসিআই’র প্রতি তিনি আহ্বান জানান, যার ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিল্পখাতের প্রয়োজন সম্পর্কে অবগত হবেন এবং সে অনুযায়ী শিক্ষা ক্যারিকুল্যামে প্রয়োজনীয় সংষ্কারে উদ্যোগী হতে পারবেন। তিনি বলেন, শিক্ষাজীবন সমাপ্তির পর গ্রাজুয়েটরাই শিল্প-কারখানা ও অন্যান্য কর্মক্ষেত্রের প্রধান অনুষঙ্গ, তাই তাদের দক্ষ মানব সম্পদে পরিণত করার লক্ষ্যে সকলকেই একযোগে কাজ করতে হবে। উপাচার্য আশা প্রকাশ করে বলেন, এ সমঝোতা স্মারক শিল্প ও শিক্ষা খাতের যৌথ প্রয়াস, যা আমাদের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাষ্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহ বলেন, দেশের অর্থনীতির বিকাশে আমাদের উদ্যোক্তারাই সর্বাধিক অবদান রাখে, তবে পরিবর্তনশীল বৈশ্বিক অর্থনীতির চাহিদা মোকাবেলায় আমাদের প্রথাগত শিক্ষা ব্যবস্থা যুগোপযোগীকরণের কোন বিকল্প নেই। বৈশ্বিক পরিবর্তনের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী দ্রুত খাপ খাওয়ানোর জন্য উপযোগী করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে তিনি শিল্পখাতের প্রতিনিধিবৃন্দকে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা ও সুপারিশ প্রণয়নের আহ্বান জানান। এছাড়াও তিনি ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করতে গিয়ে, দেশের উদ্যোক্তাবৃন্দ যে সব প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সেসব অভিজ্ঞতা বিনিময়ের প্রস্তাব করেন, যার মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তব পরিস্থিতির নিরিখে নিজেদের শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করতে সক্ষম হবে।

ডিসিসিআই’র ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি এন কে এ মবিন, এফসিএ, এফসিএস, সহ-সভাপতি মোহাম্মদ বাশিরউদ্দিন, মহাসচিব (ভারপ্রাপ্ত) আফসারুল আরিফিন, সচিব মোঃ জয়নাল আব্দীন, ডিসিসিআই স্কিল ডেভেলপমেন্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির আহ্বায়ক গোলাম জিলানী এবং নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. নজরুল ইসলাম এবং রেজিষ্ট্রার কমোডর এম মুনিরুল ইসলাম (অবঃ) প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

(এসএএম/২২ নভেম্বর ২০২০)

Short URL: https://biniyougbarta.com/?p=129349

সর্বশেষ খবর